আপনার মনে অহংকার আছে কিনা বুঝবেন কীভাবে?

আপনার মনে অহংকার আছে কিনা বুঝবেন কীভাবে?

ইসলাম

ইসলামীক ডেক্সঃ

‘যার অন্তরে অণু পরিমাণ অহংকার আছে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (মুসলিম)

কিন্তু অনেকেই নিজেকে অহংকারমুক্ত বলে থাকেন কিংবা দাবি করেন যে, আমার কোনো অহংকার নেই। তাহলে মনে অহংকার আছে কিনা তা বুঝা যাবে কীভাবে?

অহংকার এমন একটি বিষয় যা অন্তরের কাজের সঙ্গে জড়িত। যে কারণে সহজে তা ধরা পড়ে না। এ জন্যই অনেকে নিজেদের অহংকারমুক্ত মনে করেন। অহংকার আছে কিনা তা যাচাই করার ছোট একটি উদাহরণ তুলে ধরা যেতে পারে-

১. অনেকেই মনে করে থাকেন যে- তার মধ্যে অহংকার নেই; কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তাদের মধ্যেও অহংকার বিদ্যমান। যেমন- অতি সাধারণ পোশাক পরা অবস্থায় মানুষের মধ্যে বের হওয়ায় যদি নিজেদের মধ্যে লজ্জা কিংবা অপমানবোধ হয়আর এরূপ পোশাক পরা অবস্থায় যদি কোনো গুরুত্বপূর্ণ মানুষ  তাকে দেখে ফেলেন- এরকম কিছু সংকোচ খুব বেশি অনুভূত হয়? তবে বুঝতে হবে মনের মধ্যে অহংকার বিদ্যমান আছে।

২. আবার কোনো জনসমাবেশ কিংবা মাজলিসের পেছনে বা নিচে বসতে হলে কি নিজের মধ্যে খারাপ অনুভূতি পরিলক্ষিত হয়? মনের মধ্যে কি এরকম আশা জাগে যে, কেউ তাকে ডেকে সম্মান করুক কিংবা আগে সালাম দিক? যদি এমন হয় তবে বুঝতে হবে যে, এ ব্যক্তির অন্তরেও অহংকার লুকিয়ে আছে।

মনে রাখতে হবে

অন্তরের মধ্যে অহংকারের অনুপ্রবেশ প্রতিরোধের জন্য মুমিন মুসলমানকে সব সময় সজাগ থাকতে হবে। এ সম্পর্কে প্রখ্যাত তাবিঈ হজরত আব্দুল্লাহ ইবনু হানযালা রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, সাহাবি হজরত আব্দুল্লাহ ইবনু সালাম মাথায় এক বোঝা খড়ি নিয়ে যাচ্ছিলেন। তাকে বলা হলো, আপনি কেন এ কাজ করছেন? আল্লাহ তো আপনাকে সচ্চলতা দিয়েছেন, যাতে এমন না করলেও আপনার চলে?

তিনি বলেন, আমি অন্তরের অহংকার ও অহংকারবোধকে আহত করতে চাই। কারণ আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, যার অন্তরে শরিষা পরিমাণ অহংকার থাকবে সে জান্নাতে যেতে পারবে না।’ (হায়সামি, মুসতাদরাকে হাকেম)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, অহংকার সম্পর্কে সাবধানতা অবলম্বন করা। কোনোভাবেই যেন অহংকার নিজেদের অন্তরে স্থান করে নিতে না পারে। কারণ অহংকার মানুষের সব নেক আমলকে ধ্বংস করে দেয়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে অহংকারমুক্ত জীবন পাওয়ার তাওফিক দান করুন। দুনিয়ার জীবনে প্রতিটি কাজে অহংকার ও অহংকারবোধ থেকে মুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। হাদিসের ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :