আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে মহাদেবপুরে দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ-রাজশাহী টাইমস

আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে মহাদেবপুরে দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ-রাজশাহী টাইমস

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নওগাঁর মহাদেবপুরে নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা না করলেও আগাম প্রস্তুতি হিসেবে স্ব স্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক নৌকা পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা ও সদস্য পদে একইভাবে দলীয় আনুকূল্য পেতে সংশ্লিষ্টরা দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দের কাছে নিজের পক্ষে মনোনয়ন নিশ্চিত করতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। অনেকেই ঢাকায় গিয়ে দলের হাইকমান্ড ও সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য নানা তদবির-সুপারিশ শুরু করেছেন।

এদিকে দলীয় প্রার্থীর বাহিরে অন্য দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা এলাকায় জনগন ও ভোটারদের নিকট দোয়া ও সহযোগীতা কামনা করে নিরবে প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে। নিকট অতীতের নির্বাচন অভিজ্ঞতা থেকে অনেকেই মনে করছেন দলীয় হাইকমান্ডের কাছে সমর্থন আদায় করতে পারলে নৌকা প্রতীক নিয়ে ও অন্যান্য পদে দলীয় আনুকূল্য পেলে বিজয় সুনিশ্চিত। তাই এ দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সুকৌশলে দৌড়ঝাপ শুরু করে দিয়েছেন।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা উর্ধ্বতন নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের মাধ্যমে নিজ নিজ পক্ষে শক্তিশালী সমর্থক বলয় তৈরি করে দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে ব্যস্ত রয়েছেন। এছাড়া সম্ভাব্য প্রার্থীরা আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করতে না পারলেও নানা বিয়ের অনুষ্ঠান,সামাজিক আচার অনুষ্ঠানে অনুদান দিয়ে জনগণের কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করছেন।

আবার অনেকেই মনোনয়ন ক্রয় করতে মোটা অংকের টাকা জোগাড়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। তারা মনে করেন যে, মোটা অংকের টাকা দিয়ে মনোনয়ন ক্রয় করে নৌকার টিকেট বাগিয়ে নিতে পারলেই বিজয় সুনিশ্চিত। এমন ভাবনা থেকেই তারা টাকার জোগাড়ে ব্যস্ত হয়ে গেছেন।তবে একটি নিরপেক্ষ ভোট পর্যবেক্ষণ সূত্র মতে, উপজেলার মহাদেবপুর সহ অন্যান্য ১০ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জেতার জন্য কেবল নৌকা প্রতীক নির্ভরতা যথেষ্ট নয়। প্রার্থীর ন্যুনতম গ্রহণ যোগ্যতা, অতীত কর্মকান্ড নিয়ে ব্যক্তি ইমেজের ভোট ব্যাংক ফ্যাক্টর হবে।

মহাদেবপুর উপজেলা ১০ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। পুরো উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় জমে উঠেছে ভোটারদের মাঝে নির্বাচনী আলোচনা ও প্রচারণা। কে মনোনয়ন পাচ্ছেন আবার কে পাচ্ছেন না এসব নিয়ে চলছে নানা বিশ্লেষণ। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রাথমিক ভাবে যাদের নাম বলাবলি চলছে, তাদের মধ্যে মহাদেবপুর সদর ইউনিয়নে সাঈদ হাসান শাকিল তরফদার,খাজুর ইউনিয়নে শফিকুল ইসলাম,চান্দাস ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থীর মধ্যে আমজাদ হোসেন মাস্টার,চেরাগপুর ইউনিয়নে আওয়ামী ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান সরদার শহিদুল ইসলাম, রাইগাঁ ইউনিয়নে অধ্যক্ষ আরিফুর রহমান,ভীমপুর ইউনিয়নে ইনছের আলী মোল্লা ও সাবেক চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী হাসান আলী,হাতুড় ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থীর মধ্যে মোশারফ হোসেন,এনায়েতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী পরিবারের সন্তান বর্তমান চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান মিঞা,উত্তররগ্রামে আওয়ামী পরিবারের সন্তান বজলুর রশীদ ও রনজিৎ কুন্ড,সফাপুর ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থীর মধ্যে নাহিদ মোস্তফা দৌড়ঝাঁপ করছেন এবং ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

অপরদিকে মহাদেবপুর সদরের বর্তমান দলিল চেয়ারম্যান আওয়ামী পরিবারের সন্তান মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান ধলু অত্র ইউনিয়নে গ্রাম-গঞ্জে ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে ভোটারদের মন জয় করেছেন এমনি অভিমত সমালোকদের। খাঁজুর ইউনিয়নে বর্তমান দলীল চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দীনের বিকল্প নেই এমনি অভিমত ভোটারদের। সমালোচকদের অভিমত হাতুড় ইউনিয়ন এবং সফাপুর ইউনিয়নে একাধিক দলিল প্রার্থী থাকায় বিএনপির বর্তমান চেয়ারম্যান শামছুল আলম বাচ্চু ও ইনামুল ইসলামের বিজয় সুন্ধিসঢ়;চত। এছাড়া ভীমপুর ইউনিয়নে বর্তমান বিএনপির চেয়ারম্যান রাম প্রসাদ ভদ্রকে হারানো যাবে না বলে সচেতন ভোটারদের অভিমত।

অপরদিকে এবারের স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে আঞ্চলিক ও রাজনৈতিক দলগুলো নিরপেক্ষ ভূমিকা বজায় রাখলে তৃণমূল পর্যায়ের ইউনিয়ন পরিষদে সঠিক ও স্বচ্ছ জনপ্রতিনিধি ঠাঁই পেতে পারেন বলে মনে করেন সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :