ইউপি নির্বাচন: আ.লীগের প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগই

ইউপি নির্বাচন: আ.লীগের প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগই

জাতীয়

রাজশাহী টাইমস ডেক্সঃ

প্রথম ধাপের পর আসন্ন দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগই। ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে ৬শর বেশি বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

প্রথম ধাপে ২০৪ টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন। এখন প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা। কিন্তু আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এখনও বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে আসছেন মনোনয়ন বঞ্চিতরা।

মনোনয়ন বঞ্চিতদের একজন বলেন, প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া ব্যক্তি আমাদের দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত নন। এর আগে মনোনয়ন পেলেও জয়ী হতে পারেননি। এরকমও অনেক প্রার্থী রয়েছেন।

কেন্দ্রে অভিযোগ দেয়ার পাশাপাশি এলাকাতেও সরব বিদ্রোহী প্রার্থীরা। সন্ত্রাস, দুর্নীতিতো আছেই, আওয়ামী লীগের নেতারাই একজন অন্যজনকে রাজাকারপুত্র বলেও বিষোদগার করছেন। দ্বিতীয় ধাপের মনোনয়নপ্রাপ্তদের বিরুদ্ধে কয়েকশো অভিযোগ জমা পড়েছে কেন্দ্রে। এসব অভিযোগের বেশিরভাগই ভিত্তিহীন বলে জানালেন দলের দপ্তর সম্পাদক।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘আমরা কিছু জায়গায় দেখেছি সংগঠনের ভাবমূর্তি খুব বাজেভাবে ক্ষুন্ন করা হয়েছে। এরকম কিছু এলাকা আমরা চিহ্নিত করেছি। নিজেদের মধ্যে এমন বিভক্তি আমরা সাংগঠনিকভাবে সমাধানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।’

এতদিন তৃণমূলে একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকাকে সুস্থ প্রতিযোগিতা বলা হলেও এখন তা অসুস্থ প্রতিযোগিতায় পরিণত হয়েছে। দলের উপরে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলে মনে করেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘এরকম পরিস্থিতির কারণে কিছুটা সমস্যা তো হচ্ছেই। ইউপি নির্বাচনে আমরা দেখছি এবারও অনেক আসনে বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড়িয়ে গেছেন। এতে দলের ক্ষতি হচ্ছে। নিজেরা মাঠ দখলের জন্য অন্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন নেতিবাচক কথা বলছেন অনেকেই। এগুলো আমরা পর্যবেক্ষণ করছি এবং যারা বিদ্রোহী রয়েছেন তারা যেন নির্বাচনে না দাঁড়ায় সেজন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

আগের বিভিন্ন নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীদের আর মনোনয়ন দেয়নি কেন্দ্র। বর্তমানে দলের বিরোধীদের বুঝিয়ে থামানো না গেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে বার্তা দেয়া হয়েছে কেন্দ্র থেকে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :