চাঁপাইনবাবগঞ্জে গ্রাহকদের ৪ কোটি টাকা নিয়ে পরিচালক উধাও

চাঁপাইনবাবগঞ্জে গ্রাহকদের ৪ কোটি টাকা নিয়ে পরিচালক উধাও

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ‘কুসুমকলি পল্লী উন্নয়ন সোসাইটি’ নামের বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) গ্রাহকের প্রায় ৪ কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে। এতে ভুক্তভোগী কর্মকর্তা-কর্মচারী ও গ্রাহকদের মধ্যে চরম হতাশা দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে গ্রাহকদের চাপে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিপদে পড়েছেন।

এ বিষয়ে এনজিওটির ৭০ কর্মকর্তা-কর্মচারির পক্ষে এরিয়া ম্যানেজার নিয়ামত আলী বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত ৮ মার্চ এ অভিযোগ করা হয়। সঞ্চয়ের টাকা খুইয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এলাকার অসহায় ভুক্তভোগী মানুষগুলো। তাদের টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ দাবি করছেন।

হতাশ ভুক্তভোগিরা বলছেন, আমরা বুঝতেই পারিনি এভাবে প্রতারণার শিকার হবো। আর কেউ যেন এমন প্রতারণার শিকার না হন। এ ব্যাপারে প্রশাসনের নজরদারির দাবি করছেন সচেতন মহল।

অভিযোগে সূত্রে জানা গেছে, কুসুমকলি পল্লী উন্নয়ন সোসাইটি নামের এনজিওটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় ১১টি শাখা নিয়ে কাজ করছিল। সংস্থাটির উন্নয়নের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার জনগণের মধ্যে সঞ্চয়, এফডিআর ও ঋণ কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলেন তারা।

কিন্তু গত ৩ মার্চ থেকে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক খাইরুল ইসলাম গ্রাহকদের প্রায় ৪ কেটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন। ধিরে ধিরে বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রাহকরা কর্মকর্তা-কর্মচারিদের কাছে ছুটে আসছেন। গত ৫ মার্চ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক খাইরুল ইসলামের বাড়িতে খোঁজ নেয়ার জন্য গেলে তার স্ত্রী ও ভাই এনজিওতে কর্মরত কর্মকর্তাদের খোঁজ দেননি।

সরেজমিনে গিয়ে, শিবগঞ্জের ত্রিমোহনী বাজারে ‘কুসুমকলি পল্লী উন্নয়ন সোসাইটি’র প্রধান কার্যালয়ের সামনে ভুক্তভোগী গ্রাহক ও দিশেহারা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি দেখা যায়।

এরিয়া ম্যানেজার নিয়ামত আলী জানান, গ্রাহকের প্রায় ৪ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছেন কুসুমকলি পল্লী উন্নয়ন সোসাইটি’র নির্বাহী পরিচালক খাইরুল ইসলাম। গত ৩ মার্চ থেকে তার সন্ধান পওয়া যাচ্ছে না। গ্রাহকরা এখন আমাদের উপর চাপ সৃষ্টি করছে। এ পরিস্থিতিতে আমরা নির্বাহী পরিচালক খাইরুল ইসলামের সন্ধান, গ্রাহকের টাকা উদ্ধার ও তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের শিবগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।

সমাজসেবা অধিদফতর চাঁপাইনবাবগঞ্জের উপ-পরিচালক মোসা. উম্মে কুলসুম জানান, কুসুমকলি পল্লী উন্নয়ন সোসাইটি’ সমাজসেবা অধিদফতরের নিবন্ধিত। তবে সামাজসেবার নিবন্ধনে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ নেই। সামাজসেবা থেকে নিবন্ধন নেয়া এ প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে শর্ত ভঙ্গ করে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার অভিযোগ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে আমাদের ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ না থাকায় শুনানি করে সমাজসেবা অধিদফতরকে অবহিত করা হয়েছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে শিবগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আসাদুজ্জামান জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর একজন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা তার বাড়িতে গিয়েও অভিযুক্তকে পাইনি।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :