রাজশাহীতে নারী কাউন্সিলর প্রার্থীকে মারধর

তানোর উপজেলার মুন্ডুমালা পৌরসভায় নারী কাউন্সিলর প্রার্থীর প্রচারণায় বাধা মারধরের অভিযোগ

রাজশাহী

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহীর তানোর উপজেলার মুন্ডুমালা পৌরসভায় এক নারী কাউন্সিলর প্রার্থীর প্রচারণায় বাধা ও তাকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী। তার বাড়ি পৌর এলাকার সাদিপুর মহল্লায়। নাম বিলকিস বেগম (৪৫)। জবাফুল প্রতীক নিয়ে ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনি।

অভিযুক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মুন্ডুমালা উত্তরপাড়া মহল্লার বাসিন্দা। তিনি আফসার মিয়ার স্ত্রী। নাম রাফিয়া বেগম। তিনি একই এলাকায় আনারস প্রতীক নিয়ে ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ঘটনায় রাফিয়া বেগম ও তার ৩ ছেলেসহ ৮ জনকে অভিযুক্ত করে ১৮ জানুয়ারি দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনে প্রচারণার অংশ হিসেবে পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর প্রার্থী বিলকিস বেগম ও তার কর্মী-সমর্থকরা জবাফুল প্রতীকের পক্ষে মুন্ডুমালা উত্তরপাড়ায় ভোট চাইতে যান। এ সময় বিলকিস বেগমকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রাফিয়া বেগম ও তার ছেলেসহ কর্মী-সমর্থকরা দেখতে পেয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন।

তাদের এমন খারাপ ব্যবহারের জবাব দেয়ায় বিলকিস বেগম ও তার কর্মী-সমর্থকের ওপর হামলা করে প্রচারে বাধা দেন রাফিয়া বেগম। এতে বিলকিস বেগম ও তার ছেলে আহত হলে স্থানীয় একটি ফার্মেসীতে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী রাফিয়া বেগমের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে এ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন, অভিযোগ ব্যাপারে অবগত নন। তবে এ সংক্রান্ত ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ হয়ে থাকলে তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :