দুর্গাপুরে বির্তকিত ছাত্রলীগ নেতা আতিকের মাদক সেবনের ভিডিও ভাইরাল

দুর্গাপুরে বির্তকিত ছাত্রলীগ নেতা আতিকের মাদক সেবনের ভিডিও ভাইরাল

রাজশাহী

মোস্তাফিজুর রহমান জীবন রাজশাহীঃ

রাজশাহী দূর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিকের বিরুদ্ধে সরকারি চাকুরি দেয়ার নামে টাকা আত্মসাৎ, ছিনতাই ও চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছিল বেশ কিছু দিন আগে।

গত ৭ জানুযারী সকাল ১১টায় দুর্গাপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষ। শুধু সরকারি চাকুরি নয়, ছাত্রলীগের পরিচয়ে সরকারি খাস পুকুর ও ফসলি জমিতে পুকুর খননের নামেও চাঁদাবাজির অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

ফের আবারও ২৬শে জানুয়ারি মঙ্গলবার,প্রত্যাশার দূর্গাপুর আইডি তে ফেনসিডিল খাওয়ার ভিডিও ভাইরাল হয়। আইডির লেখা তুলে ধরা হল,,,,,,, দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কলঙ্কিত সাধারন সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক নিজে মাদক সেবনের পাশাপাশি মাদক ব্যবসায় জড়িত,

শুধু মাদক সেবন আর মাদক ব্যবসা নয় চাঁদাবজি ছিনতাই চুরি ও নারীকেলেঙ্কারীর মত অসামাজিক সকল কমর্কান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত এই ফেন্সিডিল খোর আতিক,তার হাত থেকে বাঁচতে চাই দুর্গাপুর বাসী। উপজেলা যুবলীগের ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আলামিন সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক তার কাছ থেকে গত বছরের ২৯ ফেব্রুয়ারী তাকে বেধড়ক মারপিট করে নগদ ২ লাখ ১৪ হাজার টাকা, ২টা মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নেয়।

ওই ঘটনায় সে আতিক সহ তিনজনকে আসামী করে রাজশাহীর আদালতে মামলাও দায়ের করেন তিনি। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন আছে। বর্তমানে মামলা তুলে নিতে প্রাণ নাশের হুমকীও দেয়া হচ্ছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন আলামিন। এসব অভিযোগ ছাড়াও ছাত্রলীগ নেতা আতিকের বিরুদ্ধে অন্যের জমি দখল, ফসলি জমিতে পুকুর খনন করতে গেলে কৃষকদের কাছে চাঁদা দাবিরও অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

ছাত্রলীগ নেতা আতিকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া সহ তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা যুবলীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আলামিন, ভুক্তভোগী আরিফুল ইসলাম, মুকুল হোসেন ছাড়াও ১০/১৫ জন উপস্থিত ছিলেন।

নাম প্রকামে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি বলেন,আতিকের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকার সকল জনসাধারণ।আমরা অতিদ্রুত কলঙ্কিত ছাত্রলীগ নেতা আতিকুর রহমান আতিক কে বহিষ্কার সহ সাংঘাতিক ব্যবস্হা গ্রহনের জোর দাবি জানান।

উক্ত সকল অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে,নানান অভিযোগে অভিযুক্ত আতিকুর রহমান আতিক সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। রাজশাহী জেলা ছাত্র লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ছাত্রলীগের যে কোন নেতাকর্মী মাদকের সাথে যুক্ত থাকলে সাংঘাতিক ভাবে ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে।তিনি আরো বলেন আমি সেন্টাল নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে অতিদ্রুত ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :