নওগাঁর আত্রাইয়ে মাকে হত্যার পর গোপনে কবর দেয়ার চেষ্টা

নওগাঁর আত্রাইয়ে মাকে হত্যার পর গোপনে কবর দেয়ার চেষ্টা

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

নওগাঁর আত্রাইয়ে পারিবারিক কলহের জেরে মা জাহিদা (৬০) কে শীলপাটা দিয়ে আঘাত করে হত্যার পর গোপনে কবর দেওয়ার প্রস্তুতি চলার সময় ছেলে ও ছেলের স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ।

আজ শুক্রবার দুপুর তিনটার দিকে উপজেলার দিঘা গ্রামের মৈত্রীপাড়ায় গ্রাম থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। আটকৃতরা হলেন, জাহিদার ছেলে জাহিদুুল ইসলাম ও জাহিদুলের স্ত্রী রহিমা খাতুনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত জাহিদা মৃত হারান প্রামানিকের স্ত্রী।

আত্রাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, শুক্রবার ভোর রাতে পারিবারিক কলহের জেরে বাকবিতান্ডা শুরু হয়। এ সময় মা জাহিদাকে শীলপাটা দিয়ে মাথায় আঘাত করে ছেলে জাহিদুুল ইসলাম (৪৩) ও জাহিদুলের স্ত্রী রহিমা খাতুন (৩৫)। ঘটনা স্থালেই তার মৃত্যু হয়।  এরপর  মায়ের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করে ছেলে জাহিদুল ইসলাম। এসময় নিজ  আত্মীয়দের ছাড়া স্থানীয়দের মরদেহ দেখতেও দেয়নি সে।

পরে জাহিদুল ইসলাম তার মাকে কবর  দেওয়ার প্রস্তুতি নেয়। জাহিদুলের কথা বর্তা এবং চালচলনে প্রতিবেশীদের সন্দেহ হয়। প্রতিবেশীরা জোর করে জাহিদার মরদেহ দেখে মাথায় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান এবং পুলিশে খবর দেন।

ওসি আরও জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে জাহিদার মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ছেলে জাহিদুুল ইসলাম ও জাহিদুলের স্ত্রী রহিমা খাতুন শীলপাটা দিয়ে আঘাত করার কথা স্বীকার করেছে। তাদেরকে আটক করা হয়েছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :