নওগাঁয় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষের ঘটনায় দু‘টি মামলা ১১৪ জন আসামী ১৪ জন আটক

নওগাঁয় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষের ঘটনায় দু‘টি মামলা ১১৪ জন আসামী ১৪ জন আটক

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

সরকারি কাজে বাধাদান পুলিশকে মারপিট ও জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করায় নওগাঁয় বিএনপির নেতকর্মীদের বিরুদ্ধে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় জেলা বিএনপির কার্যালয়ে সামনে পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের পর থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত দুটি মামলায় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডঃ রফিকুল আলম সহ ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে নওগাঁ সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মান্নান বাদী হয়ে এই মামলা দুটি দায়ের করেন । মামলা দুটিতে নওগাঁ পৌর মেয়র নাজমুল হক সনি সহ ১১৪ জনের নাম উল্লেখসহ আরো শতাধিক অজ্ঞাতনামাকে আসামী করে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। 

নওগাঁ সদর মডেল থানা সুত্রে জানা যায়, সরকারি কাজে বাধাদান ও পুলিশকে মারপিটের অভিযোগে ৫৭ জনসহ অজ্ঞাত আরো অনেকের বিরুদ্ধে মামলায় হয়।এছাড়া অপর একটি মামলায় সরকারি সম্পত্তিসহ জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে ৫৭ জনসহ অজ্ঞাত আরো অনেকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।নওগাঁ সদর মডেল থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, মঙ্গলবার পৃথক দুইটি মামলা হয়েছে।

আজ বুধবার দুপুর পর্যন্ত দুটি মামলায় ১৪ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে এবং গ্রেফতারকৃতদের দুপুরের পরই বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। মামলায় চিহ্নত ও ভিডিও ফুটেজ দেখে যাচাই করে অন্য আসামীদেরও দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে বলেও জানিয়েছেন।উল্লেখ্য, স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমণকে ঘিরে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন জেলায় ব্যাপক তান্ডব চালায় জঙ্গী কায়দায় হেফাজতে ইসলাম সমর্থকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে চট্টগ্রামে চারজন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অন্তত সাতজন নিহত হয়।

এই নিহত হওয়ার ঘটনায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নওগাঁ জেলা বিএনপি কার্যালয় কেডির মোড়ের সামনে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলের বের করার চেষ্টা করে।বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ বাধা দিলে বিএনপি নেতাকর্মী ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের উপর চড়াও হয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ, গাড়ী ও দোকানপাট ভাংচুর শুরু করে।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে লাঠিচার্জ, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে বিএনপির একজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৪০-৫০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। ঘটনায় ৭ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।জেলা বিএনপির আহবায়ক মাষ্টার হাফিজুর রহমান জানান, শান্তিপূর্ণ ভাবে বিক্ষোভ মিছিলের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় পুলিশ বিনা উস্কানিতে কোন কারণ ছাড়াই বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ শুরু করে।

বিএনপির নেতাকর্মীরা কেডির মোড় এলাকা থেকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিলে সেখানে পুলিশ টিয়ারশেল, রাবার বুলেট ও গুলি ছুঁড়ে আবার তাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই মিথ্যা, সাজানো মামলার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করেন তিনি।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :