পাবনা পৌর নির্বাচনে নৌকার পক্ষে সিল মারতে বাধ্য করার অভিযোগ

পাবনা পৌর নির্বাচনে নৌকার পক্ষে সিল মারতে বাধ্য করার অভিযোগ

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

পাবনার ঈশ্বরদী, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর ও সাঁথিয়া পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে ফরিদপুর পৌরসভায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ চলছে। বাকিগুলোতে চলছে ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহণ।

শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সকালের দিকে ভোট কেন্দ্রে ভোটারের উপস্থিতি কম লক্ষ্য করা গেছে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারের উপস্থিতি বাড়তে থাকে।

এদিকে, বিএনপির মেয়র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম নয়নকে মারধর করে ভোট কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ভোট শুরুর পর সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পৌরসভার ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট পরিদর্শন গেলে রফিকুল ইসলাম নয়নকে মারধর করে নৌকার সমর্থকরা। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে তাকে জোর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয় বলে দাবি বিএনপি প্রার্থীর।

তার অভিযোগ, জোর করে নৌকার পক্ষে সিল মারতে বাধ্য করা হচ্ছে। এভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। তবে তিনি শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকবেন।

তবে, অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী ইসাহক মালিথা জানান, নিশ্চিত পরাজয় জেনে বিএনপি প্রার্থী হামলার নাটক সাজিয়ে নির্বাচন বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন।

এদিকে, নির্বাচন ঘিরে উত্তেজনা বিরাজ করছে সাঁথিয়া পৌরসভাতেও। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সাঁথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট প্রদানের অভিযোগে কয়েকজন বহিরাগত যুবকের সাথে কথা কাটাকাটি হয় বিএনপি প্রার্থী সিরাজুল ইসলামের। এসময় তাকে লাঞ্ছিত করে নৌকার সমর্থকরা। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ ও বিজিবি এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সাঁথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আলমগীর কবীর জানান, সকালে জাল ভোট দেয়ার অভিযোগ করেন বিএনপি প্রার্থী, আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হচ্ছে।

অপর দুটি পৌরসভার মধ্যে ভাঙ্গুড়া পৌরসভাতে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম হাসনায়েন রাসেল। সেখানে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এছাড়া তিনটি ফরিদুপর পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে মেয়রসহ সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনের পৌর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :