পুলিশের ধাওয়া-লাঠিচার্জে পণ্ড বিএনপির সমাবেশ

পুলিশের ধাওয়া-লাঠিচার্জে পণ্ড বিএনপির সমাবেশ

জাতীয়

রাজশাহী টাইমস ডেক্সঃ

পুলিশের ধাওয়া ও লাঠিচার্জে পণ্ড হলো বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ।শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় বিএনপির নেতাকমীরা।

ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত এ সমাবেশে কয়েকশ নেতা-কর্মী অংশ নেন। সমাবেশকে কেন্দ্র করে জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় জলকামান ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সকাল থেকেই প্রেসক্লাব এলাকা ও এর আশপাশের সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ সময় এই সড়ক ধরে সাধারণ মানুষকেও হেঁটে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়।

জিয়ার রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান দেন। সমাবেশ যখন শেষের পথে তখন একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বেধে যায়। দুপুর সোয়া ১২টার দিকে পুলিশ নেতা-কর্মীদের লাঠিচার্জ শুরু করে। লাঠিচার্জে আহত হয় বেশ ক’জন কর্মী। এসময় বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন।

সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমানুল্লাহ আমান এবং ইশরাক হোসেনসহ দলটির কেন্দ্রীয় ও মহানগর পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নেতারা আহ্বান জানান, পাল্টা আঘাত করার। তারা বলেন, জিয়ার খেতাবের দিকে হাত বাড়ালে তা জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হবে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, জিয়াউর রহমানের বীরত্বের স্বীকৃতি বীর উত্তম খেতাব বাতিলের যে সিদ্ধান্ত সেটা আল-জাজিরার ড্যামেজ কন্ট্রোলের ব্যর্থ চেষ্টা।

স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যারা জড়িত তারা প্রধানমন্ত্রীর আশপাশেই। তাদের পুরস্কৃত করেছে সরকার। ক্ষমতার জন্য পিতার প্রতি সম্মান দেখাননি প্রধানমন্ত্রী। ভাষণ দিয়ে নয়, যুদ্ধ করেই বীর উত্তম খেতাব পেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। জিয়ার খেতাব নিয়ে ব্যবসা করে না বিএনপি, গর্ব করে।

তিনি আরো বলেন, আঘাত আসলে প্রতিহত করতে হবে, পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, তবুও আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে, অনৈতিক কার্যকলাপ থেকে বিরত থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জনগণের পক্ষে থাকার আহ্বান তিনি।

নেতাকর্মীদের সমাবেশে আসতে বাধা দেয়ারও অভিযোগ করেন নেতারা। বিএনপি নেতারা বলেন, জিয়ার খেতাব কেড়ে নিতে চায়, শান্তিপূর্ণ সমাবেশে হামলা করে তাদের পরিণাম ভালো হবে না।

তবে, পুলিশ বলছে বিএনপির নেতাকর্মীরা পরিকল্পিতভাবে এই হামলা করেছে। রমনা জোনের অতিরিক্ত উপ কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, পুলিশের ওপর পরিকল্পিত হামলা করেছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। রাস্তা দখল করে সমাবেশ করছিলো। পুলুশ বুঝিয়েছে কিন্তু তারা শোনেনি। বরং হামলা করেছে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :