বাগমারা চাইঁপাড়া পেঁয়াজ বীজে লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা

বাগমারা চাইঁপাড়া পেঁয়াজ বীজে লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা

রাজশাহী

মোঃ মিজানুর রহমান ( তাহেরপর প্রতিনিধি)ঃ

রাজশাহী জেলা বাগমারা থানাধীন ৬ নং শ্রীপুর ইউনিয়ন ৬ নং ওযাড চাইঁপাড়া গ্রাম। গ্রামের মানুষের অন্যতম ফসল পান, আলু, পিয়াজ,তার মধ্যে অনেকটা অন্যতম ফসল উৎপাদন করে থাকেন এই গ্রামের কৃষকরা পিয়াজের বীজ যা কন্দম নামে পরিচিত। কন্দ থেকে বীজ : উন্নত ও অধিক ফলনের জন্য কন্দ থেকে বীজ উৎপাদন পদ্ধতি সবচেয়ে উপযোগী হওয়ায় আমাদের দেশে সাধারণত কন্দ থেকে বীজ উৎপাদন পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়।

কন্দ থেকে বীজ উৎপাদন: সাধারণত উৎপাদিত পেঁয়াজ ফসল থেকে মাতৃকন্দ সংগ্রহ করা হয়। বীজ উৎপাদনের জন্য ৪-৬ সেমি. ব্যাসের কন্দ উপযুক্ত । বীজের বিশুদ্ধতার জন্য কন্দ উৎপাদন মৌসুমে সতর্কতার সাথে অস্বাভাবিক পত্রগুচ্ছ, রোগাক্রান্ত পেঁয়াজ গাছ ক্ষেত থেকে তুলে ধ্বংস করে ফেলতে হবে। পরিপক্ব পেয়াজ কন্দ, চিকন গলা এবং রোগ মুক্ত পেঁয়াজের মাতৃকন্দ সংগ্রহ করতে হবে । মাতৃকন্দ সংরক্ষণ করা হয় যেভাবে: পেঁয়াজ কন্দ উত্তোলনের পর এর পাতা ও শিকড় কেটে ৭-১০ দিন বায়ু চলাচল সুবিধা যুক্ত শীতল ও ছায়াময় স্থানে শুকিয়ে নিতে হবে ।

এরপর যথারীতি মাতৃকন্দের জন্য বাছাই ও শ্রেণীবিন্যাস করে ঠাণ্ডা ও বায়ুময় গুদামে সংরক্ষণ করতে হবে। মাঝে মাঝে পচা বা শুকনা পেঁয়াজ বেছে সরিয়ে ফেলতে হবে। চাইপাড়া গ্রামের কন্দম চাষি সাইদুর রহমানের সাথে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন দীর্ঘ ১০ বছর ধরে তিনি কন্দম চাষ করে আসতেছে এবং সফলতা সাথে দীর্ঘ দিন অনেক বেশি লাভবান হয়েছেন কন্দম চাষ করে বীজ বিক্রিয়ের মাধ্যমে।

এবার ও চাষ করেছেন ২ বিঘা জমিতে ফলন ভালো এবং মৌমাছির আগাগুনা হয়েছে তার ফসলে যার ফলে ফলন ভালো হবে এমনটাই আশা করেন তিনি। তিনি আরও বলেন এবার অনেকের ফলন হয়নি যা আবহাওয়া এবং মৌমাছির জন্য ভালো বীজ সবার জমিতে ফলে নাই। এইদিকে সাংবাদিক আলিম বলেন তার ১০ কাঠা জমিতে কন্দম করেছেন ফলন ভালো হয়নি এইনিয়ে তার মতবাদ জানিয়েছেন মুঠোফোনের মাধ্যমে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :