‘বিছানা ভাগাভাগি করে থাক, না হয় হল ছাড়’ বলে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি

‘বিছানা ভাগাভাগি করে থাক, না হয় হল ছাড়’ বলে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি

রাজশাহী শিক্ষা

রাজশাহী টাইমস ডেক্সঃ

‘বিছানা ভাগাভাগি করে অন্য কক্ষে থাকতে পারলে থাক, তা না পারলে আগের মতো বাইরে মেসে গিয়ে থাক’—এ কথা বলে এক আবাসিক ছাত্রকে হল ছাড়ার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) নবাব আব্দুল লতিফ হলের এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে।

বুধবার (১৫ জুন) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সজিব কুমার নামের এক শিক্ষার্থী এ অভিযোগ করেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আব্দুল রতিফ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী। তার গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায়।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা নবাব আব্দুল লতিফ হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম হোসেন।

অভিযোগকারী শিক্ষার্থী সজিব কুমার বলেন, ‘আমি নবাব আব্দুল লতিফ হলের একজন আবাসিক ছাত্র। আমার কক্ষ নম্বর ২০৪। ওই কক্ষে চারমাস ধরে এক বড় ভাইয়ের সঙ্গে বেড ভাগাভাগি করে ছিলাম। ১০ দিন আগে তিনি অন্য কক্ষে চলে যাওয়ায় এ কক্ষ স্থায়ীভাবে বরাদ্দ পেয়েছি। আমার আবাসিকতার কার্ডও আছে।’

তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার (১৪ জুন) সন্ধ্যায় হল ছাত্রলীগের সেক্রেটারি শামীম হোসেন আমাকে ডেকে কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। অন্য কক্ষে বেড ভাগাভাগি করে যদি থাকতে পারি তবে হলে থাকতে পারবো, না হয় হল থেকে বের হয়ে গিয়ে আগের মতো মেসে থাকার কথা বলেন। এমনকী হল থেকে বের না হলে তার অনুসারীরা আমাকে বের করে দেবেন বলে হুমকি দেন। পরে রাত ১১টার দিকে সেক্রেটারির অনুসারীরা রুমে এসে বিছানাপত্র নিচে ফেলে দেন এবং আমার সিটে অন্য একজন ছেলেকে উঠিয়ে দেন।’

নিজের নিজের সিট ফিরে পেতে হল প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন ওই শিক্ষার্থী।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম হোসেনের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এ বিষয়ে নবাব আব্দুল রতিফ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বলেন, ঘটনাটি জেনেছি। তবে তাকে কক্ষ থেকে বের করে দেওয়া কিংবা বিছানাপত্র ছুড়ে ফেলার কোনো ঘটনা ঘটে নি। এটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগ।

তিনি বলেন, ‘আগের প্রাধ্যক্ষ তাকে হল কার্ড করে দিয়েছেন। তবে তাকে কোনো কক্ষ নম্বর দেননি যেহেতু তার হল কার্ড রয়েছে, তাই সে হলে থাকবে। অন্য কোনো কক্ষে তার থাকার ব্যবস্থা করা হবে।’

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :