যে চিন্তা মানুষকে অন্যায় থেকে দূরে রাখে

যে চিন্তা মানুষকে অন্যায় থেকে দূরে রাখে

ইসলাম

ইসলামীক ডেক্সঃ

মানুষ হাত, পা, চোখ, মুখ, কান, নাক ইত্যাদি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দ্বারা নানা ধরনের কাজ করে থাকেন। যে কোনো কাজ করার আগে মানুষের চিন্তা করা উচিত যে- এ সব অঙ্গই কেয়ামতের দিন তাদের কাজের বিবরণ দেবে। সেদিন মুখ বন্ধ করে দেয়া হবে। হাত পা কান নাক চোখ ও মুখ যার যার কাজের সাক্ষ্য দেবে। আল্লাহ তাআলা বলেন-
الْيَوْمَ نَخْتِمُ عَلَى أَفْوَاهِهِمْ وَتُكَلِّمُنَا أَيْدِيهِمْ وَتَشْهَدُ أَرْجُلُهُمْ بِمَا كَانُوا يَكْسِبُونَ
‘আজ (কেয়ামতের দিন) আমি তাদের মুখে মোহর এঁটে দেব তাদের হাত আমার সঙ্গে কথা বলবে এবং তাদের পা তাদের কৃতকর্মের সাক্ষ্য দেবে।’ (সুরা ইয়াসিন : আয়াত ৬৫)

আর এসব কাজ যদি অন্যায়মূলক হয় তবে তা গোনাহের উপলক্ষ্য হবে। তাই হাত পা নাক কান মুখ ও চোখ দ্বারা যে কোনো কাজ করার আগে তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা আবশ্যক। যাতে এসব অঙ্গ দিয়ে কোনো গোনাহের কাজ না হয়।
> চোখ
চোখ দিয়ে মানুষ দেখে। দেখার ক্ষেত্রে ভালো ও খারাপ দুটিই দেখার সুযোগ রয়েছে। তাই চোখ দিয়ে খারাপ কোনো কিছু দেখা বা ইশারা করার আগে এই ভাবনা মানুষকে গোনাহ করা থেকে বিরত রাখতে পারে যে- এই চোখ-ই কেয়ামতের দিন এ অন্যায়ের ব্যাপারে নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে।

> হাত
হাত দিয়ে মানুষ কাজ করে থাকে। ভালো ও মন্দ উভয় কাজই হাত দ্বারা করা যায়। সুতরাং হাত দিয়ে খারাপ কোনো কিছু করার আগে এই ভাবনা মানুষকে গোনাহ করা থেকে বিরত রাখতে পারে যে- এই হাত-ই কেয়ামতের দিন এ অন্যায়ের ব্যাপারে নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে।

> পা
পা দিয়ে মানুষ চলাফেরা করে। ভালো ও মন্দ উভয় পথেই চলা সম্ভব। তাই পা দিয়ে খারাপ কোনো কিছুর দিকে ধাবিত হওয়া বা কোনো খারাপ কাজ করার প্রতি এগিয়ে যাওয়ার সময় এই ভাবনা মানুষকে গোনাহ করা থেকে বিরত রাখতে পারে যে- এই পা-ই কেয়ামতের দিন এ অন্যায় কাজের দিকে ধাবিত হওয়ার ব্যাপারে নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে।

> কান
কান দিয়ে শোনা যায়। মানুষ চাইলে ভালো কিছু শুনতে পারে আবার খারাপ কথা কিংবা সংলাপও শুনতে পারে। তাই কান দিয়ে যদি খারাপ কোনো কিছু শোনার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ে তবে এই ভাবনা মানুষকে গোনাহ করা থেকে বিরত রাখতে পারে যে- এই কান-ই কেয়ামতের দিন মন্দ কিছু শোনার দিকে ধাবিত হওয়ার ব্যাপারে নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে।

> মুখ
মুখ দিয়ে মানুষ কথা বলে। খাওয়া-দাওয়া করে। এ মুখ দ্বারা যেসব অন্যায় কাজ সংঘটিত হবে, সেসব কাজ সেদিন দৃশ্যমান হবে। নিজের বিরুদ্ধে কেয়ামতের ময়দানে সাক্ষ্য দেবে। সুতরাং মুখ দ্বারা কথা বলার সময়, খাওয়ার সময় এ চিন্তাই মানুষকে গোনাহের কাজ থেকে বিরত রাখতে পারে যে- ‘মুখের কথা ও কাজ কেয়ামতের দিন নিজের বিরুদ্ধে দুনিয়ার কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে সাক্ষ্য দেবে।

সুতরাং হাত পা চোখ কান নাক মুখ ইত্যাদি অঙ্গের দ্বারা যে কোনো কাজ করার আগে মানুষের জন্য এ চিন্তা করা খুব বেশি প্রয়োজন যে- ‘আমি যে কাজ করছি; কেয়ামতের দিন এসব অঙ্গই আমার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে। কাজের বিবরণ দেবে। এ চিন্তা করলেই আর গোনাহ করা সম্ভব হবে না। গোনাহমুক্ত থাকবে মানুষ ‘

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যে কোনো কাজ করার আগে কেয়ামতের দিন তার দরবারে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের সাক্ষ্য দেয়ার বিষয়টি স্মরণে রাখার তাওফিক দান করুন। গোনাহমুক্ত জীবন গড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :