রাজশাহীতে এসটিএস ও মেডিক্যাল বর্জ্য ট্রিটমেন্ট প্লান্ট পরিদর্শনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কমিটি

রাজশাহীতে এসটিএস ও মেডিক্যাল বর্জ্য ট্রিটমেন্ট প্লান্ট পরিদর্শনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কমিটি

রাজশাহী

লিয়াকত রাজশাহী ঃ

রাজশাহী মহানগরীর বর্জর্য ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নের লক্ষ্যে সেকেন্ডারী ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) ও মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ট্রিটমেন্ট প্লান্ট পরিদর্শন করেছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সকল সদস্যবৃন্দ।

শনিবার দুপুর ১২টা হতে দুপুর সড়ে ৩টা পর্যন্ত নগরীতে স্থাপিত তেরখাদিয়া এসটিএস, মেডিক্যাল কলেজ এসটিএস, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এসটিএস ও কাজলা গেট  ও বড়কুঠি সেকেন্ডারী ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) এবং নওদাপাড়ায় ল্যান্ডফিল সংলগ্ন মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ট্রিটমেন্ট প্লান্টের কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন। 

পরিদর্শনকালে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ সরিফুল ইসলাম বাবু বলেন, আগামী ১লা ফেব্রুয়ারি হতে মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডের প্রাইমারী ও সেকেন্ডারী ড্রেনের কাদামাটি এক্সাভেটর মেশিন দ্বারা পরিস্কার করা হবে। মাননীয় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে বর্তমান পরিষদ দায়িত্ব গ্রহণের পর নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে পরিচ্ছন্নতায় বছরব্যাপী নানা কর্মসূচির গ্রহণ করা হয়েছিল। ব্যাপকভাবে কর্মকান্ড শুরু হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে সে কার্যক্রম বাস্তবায়নে শিথিলতা আসে। ইতোমধ্যে কাউন্সিলরগণের মতামতের ভিত্তিতে প্রাইমারী ও সেকেন্ডারী ড্রেনের কাদামাটি অপসারণযোগ্য ড্রেনের তালিকা, ড্রেনের উপর অবস্থিত অবৈধ স্থাপনার তালিকা প্রস্তুত করতে সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

যার কাজ অচিরেই শুরু হবে। যার ফলে আগামী বর্ষা মৌসুমে নগরীতে আর জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে না। একই সাথে মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমেও গতির সঞ্চার হবে। নগরীতে পরিচ্ছন্ন পরিবেশের আরও উন্নয়ন হবে।  তিনি বলেন, জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ রক্ষায় মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম আধুনিকায়নের লক্ষ্যে প্রিজম বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন রাজশাহী মহানগরীতে কার্যক্রম শুরু করেছে। গত ১লা অক্টোবর নওদাপাড়ায় ল্যান্ডফিল সংলগ্ন প্লান্টটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। 

এ সময় প্রিজম বাংলাদেশ রাজশাহীর ডিস্ট্রিক কো-অর্ডিনেটর ফারুক জাহাঙ্গীর মিঠু জানান, রাজশাহী মহানগরীতে হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডেন্টাল ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংকসহ ২০৫টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ইতোমধ্যে মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য  নগরীর  হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংকসহ ১১০টি প্রতিষ্ঠান রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সহযোগী প্রতিষ্ঠান প্রিজম বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে।

প্রিজম বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন নির্ধারিত সার্ভিস চার্জের ভিত্তিতে রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে  মেডিক্যাল বর্জ্য সামগ্রী সংগ্রহ করছে। অটো ক্লেভিং, ইনসিনেরেশন ও ইটিপির মাধ্যমে তা প্রক্রিয়াজাত করছে। পরিদর্শনকালে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার স্থায়ী কমিটির সদস্য ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোমিন, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ২৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল হাসান বাচ্চু,  প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন উপস্থিত ছিলেন। 

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :