রাজশাহীতে বিএনপি’র প্রতিবাদ সমাবেশ

রাজশাহীতে বিএনপি’র প্রতিবাদ সমাবেশ

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

স্বাধীনতার ঘোষক, মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের সম্মুখ সাড়ির যোদ্ধা, সেক্টর কমান্ডার শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ছিলেন এদেশের গণমানুষের নেতা। তিনি জন্মেছিলেন বলে বাঙ্গালী জাতি বাংলাদেশ নামে একটি দেশ পেয়েছে।

তাঁর ডাকে সারা বাংলার মানুষ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলো। মহান মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অবদানের কারনে সে সময়ে শেখ মুজিবুর রহমান মেজর জিয়াকে বীর উত্তম খেতাব দিয়েছিলেন। আর যারা মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পার্শবর্তী দেশ ভারতে পালিয়ে গিয়ে বিলাসবহুল হোটেলে বসে মদ ও নারী নিয়ে মাস্তি করেছিলেন।

তারাই আজ দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করছে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিল করার ষড়যন্ত করছে। জাতীয়তাবাদী বিশ্বাসে একটি প্রাণ বেঁচে থাকা পর্যন্ত কারো ক্ষমতা নাই জিয়াউর রহমানরে খেতাব বাতিল করার। আর এটা যদি হয় তাহলে দেশে আগুন জ্বলবে।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি রাজশাহী জেলা ও মহানগর এর অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে আজ বুধবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। নগরীর মালোপাড়াস্থ বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা ও বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীর উত্তম এর রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের ষড়যন্ত্র, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও স্বৈরতন্ত্র ও মাফিয়াতন্ত্রের পতনের দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু এই কথাগুলো বলেন। 

তিনি বলেন, জিয়া হচ্ছে রেডিয়ান্ট। সারা জীবন জল জল করে জলতে থাকবে। খেতাব বাতিল করে মানুষের মন থেকে তাঁর নাম মুছে ফেলতে পারবেনা। আর যদি করা হয় তাহলে সাইক্লোন ও জলচ্ছাসের ন্যায় দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে এই বিনা ভোটের সরকারকে বিতারিত করা হবে। তিনি বলেন, বীর যোদ্ধারা সর্বদা সামনের দিকে এগিয়ে যায়। গুলি লাগলে মাথা কিংবা বুকে লাগে।

আর কাপুরুষদের পিছনে লাগে। আওয়ামী লীগ সেটাই করছে। তিনি এই ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তিনি আরো বলেন, আগামী ১মার্চ রাজশাহী বিভাগীয় সম্মেলন হবে। এই সম্মেলনে বাধা দেয়ার জন্য ইতোমধ্যে রাজশাহীতে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। কোন ষড়যন্ত্রই এই সমাবেশ রুখতে পারবেনা। আর এই সমাবেশ থেকে সরকার পতনের রুপরেখা ঘোষনা করা হবে বলে জানান মিনু। 

সভায় উপস্থিত অন্যান্য বক্তারা বলেন, এই সরকারের আমলে আর কোন নির্বাচন নয়। এই স্বৈরাচার সরকারকে বিতারিত করে একটি নিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক সরকারের অধিনে নির্বাচন করবেন বলে জানান তারা। সেইসাথে সরকার পতনের আন্দোলনের ডাক দেয়ার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের প্রতি দাবী জানান। 

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও রাসিক সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন, বিএনপি জাতীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ, বিএনপি জাতীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এ্যাডভোকেট মতিউর রহমান মন্টু, বিএনপি জাতীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল, সদস্য সচিব অধাপক বিশ্বনাথ সরকার,

বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সভাপতি সাইদুর রহমান পিন্টু, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সভাপতি শওকত আলী, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী, রাজশাহী জেলা বিএনপি’র সদস্য ও সাবেক এমপি জাহান পান্না, সদস্য সদর আলী, মকবুল হোসেন, মিজানুর রহমান মিজান ও স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী উদয্পান উপলক্ষে মিডিয়া কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সদস্য ও জেলা বিএনপি’র সদস্য মাহমুদা হাবীবা। সমাবেশ সঞ্চালনা করেন জেলা বিএনপি’র সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বতর্মান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গোলাম মোস্তফা মামুন ও মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা।

উপস্থিত ছিলেন বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম মিলু, সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন দিলদার, মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বজলুল হক মন্টু, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সাধারাণ সমম্পাদক আলী হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুরাদ পারভেজ পিন্টু, পুঠিয়ার মেয়র মামুন, জেলা কৃষক দলের আহ্বায়ক আল-আমিন সরকার টিটু, সদস্য সচিব নাজমুল হক, যুগ্ম আহ্বায়ক আলম মাস্টার ও মেজবাউল হক এবং মহানগর কৃষক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক জিএম সালাম রোজ। আরো উপস্থিত ছিলেন যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাজশাহী জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন,

মহানগর যুবদল সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম সমাপ্ত, সহ-সভাপতি সুলতান আহম্মেদ, রাজশাহী মহানগর স্বেচ্ছসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন, সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন, মহানগর সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর তারেক, রাজশাহী মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট রওশন আরা পপি, অধ্যক্ষ সখিনা খাতুন, গুলশান আরা মমতা,

রোজি ও জান্নাতুল ফেরদৌস।এছাড়াও ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি, মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকী,

রাবি ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহম্মেদ রাহি ও মহানগর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মাকসুদুর রহমান সৌরভসহ জেলা ও মহানগর বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের অন্যান্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। 

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :