রাজশাহী নগর যুবলীগের সমাবেশে দুদফা সংঘর্ষ

রাজশাহী নগর যুবলীগের সমাবেশে দুদফা সংঘর্ষ

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

রাজশাহী নগর যুবলীগের র‌্যালীর প্রস্তুতি সমাবেশে দুপক্ষের মধ্যে দুই দফায় হাতাহাতি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সেখানে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। বৃহস্পতিবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে নগরের কুমারপাড়ায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এ র‌্যালীর আয়োজন করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নগর যুবলীগের পক্ষ থেকে র‌্যালীর আয়োজন করা হয়। এ উপলক্ষে বিকেল থেকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হয় যুবলীগের নেতাকর্মীরা। বিকেল সোয়া ৪টার দিকে র‌্যালী শুরুর আগে মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ভিতরে ধাক্কাধাক্তি শুরু হয়। এর পর বাইরে দুপক্ষের কর্মী হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। এতে সেখানে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এ সময় নগর আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতৃবৃন্দসহ পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনার পর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর র‌্যালী বের করা হয়নি। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে কর্মসূচি শেষ করা হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।

সমাবেশ শেষে যাওয়ার সময় আরেক দফায় দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় পুলিশ ও নেতারা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।  দুই দফায় হাতাহাতি ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়া কর্মীরা নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ আল মাসুদ রনির সমর্থক বলে জানা গেছে। আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে বলে দলীয় একাধিক সূত্র জানায়।

সূত্রমতে, অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। মেয়রকে রিসিভ করতে যাওয়ার সময় নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী গ্রুপের একজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ আল মাসুদ রনিকে ধাক্কা দেন। এ থেকে ঘটনার সূত্রপাত হয়।

এ ব্যাপারে জানতে নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ আল মাসুদ রনিকে মুঠোফোনে রিং দেয়া হলেও তারা রিসিভ করেননি। এ কারণে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তবে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার বলেন, যুবলীগের কিছু উশৃংখল কর্মী এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ কারণে র‌্যালী না করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও বেলুন উড়িয়ে কর্মসূচী শেষ করা হয়েছে। তবে এ ঘটনা যারা ঘটিয়েছে আমরা তাদের চিহ্নত করে দল থেকে বহিস্কারের জন্য যুবলীগকে সুপারিশ করবো। তারা যদি পদক্ষেপ না নেয় তবে বিষয়টি কেন্দ্রে জানানো হবে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :