রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদার শোক দিবস পালন

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদার শোক দিবস পালন

রাজশাহী

রাজশাহী ব্যুরোঃ

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে আজ রবিবার সকাল ১০টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধু সহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

এরপর দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল শেষে দলীয় কার্যালয়ে মানবভোজ বিতরণ করা হয়। আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের সভাপতি ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ডাবলু সরকার, সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, যুগ্ম সম্পাদক আহ্সানুল হক পিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমন।

সভায় এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান না থাকলে বাংলাদেশের সৃষ্টি হতো না। যারা বাংলাদেশকে মেনে নিতে পারে নি, তারাই ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছিলো। সেদিন তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ক্ষান্ত হয়েছিলো না, সেদিন তঁার সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, তিন সন্তান শেখ জামাল, শেখ কামাল, শেখ রাসেলকে নৃশংস ভাবে হত্যা করেছিলো।

তঁাদেরকে হত্যার মূল উদ্দেশ্য ছিলো বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে বঙ্গবন্ধুর উত্তরসূরী যেন সৃষ্টি না হয়। সেদিন তারা হত্যা করেছিলো বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে, তৎকালিন যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মনিকে, যেন সে যুব সমাজকে সুসংগঠিত করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রচার করতে না পারে। সেদিন তারা হত্যা করেছিলো তৎকালিন কৃষক নেতা আব্দুর রব সেরনিয়াবাতকে, যিনি কৃষকদের দুঃখ দুর্দশা নিয়ে চিন্তা করতেন এবং কৃষকদের সুসংগঠিত করে কৃষি বিপ্লবের দাড় উন্মোচন করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্যে দিয়ে জাতিকে নেতৃত্ব শূণ্য করেছিলো।

কিন্তু তঁার দুই কন্যা সন্তান শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় তঁারা বেঁচে যায়। আজ দেশরত্ন শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর  স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। মোঃ ডাবলু সরকার বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম হয়েছিলো বলেই বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট্রের সৃজন হয়েছিলো। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যারা মেনে নিতে পারেন নি, তারাই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছিলো।

তঁার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা দেশের বাইরে থাকায় তঁারা বেঁচে যায়। আজ বঙ্গবন্ধুর কন্যা, দেশরত্ন শেখ হাসিনা তঁার পিতার স্বপ্নে দেশ গড়তে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের সহ-সভাপতি মাহফুজুল আলম লোটন, সৈয়দ শাহাদত হোসেন, ডাঃ তবিবুর রহমান শেখ, নাঈমুল হুদা রানা, বদরুজ্জামান খায়ের, যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. আসলাম সরকার, কৃষি সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, প্রচার সম্পাদক দিলীপ কুমার ঘোষ, আইন সম্পাদক অ্যাড. মুসাব্বিরুল ইসলাম, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক জিয়া হাসান আজাদ হিমেল, ধর্ম সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক রবিউল আলম রবি, মহিলা সম্পাদিকা ইয়াসমিন রেজা ফেন্সি, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মকিদুজ্জামান জুরাত, শ্রম সম্পাদক আব্দুস সোহেল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক কামারউল্লাহ সরকার কামাল, উপ-দপ্তর সম্পাদক পংকজ দে, উপ-প্রচার সম্পাদক সিদ্দিক আলম, সদস্য জহির উদ্দিন তেতু, মুশফিকুর রহমান হাসনাত, নজরুল ইসলাম তোতা, আশরাফ উদ্দিন খান, অ্যাড. শামসুন্নাহার মুক্তি, আতিকুর রহমান কালু, আব্দুস সালাম, কল্পনা রায়, অ্যাড. শামিমা আক্তার খাতুন, সৈয়দ মন্তাজ আহমেদ, মজিবুর রহমান, বাদশা শেখ, আলিমুল হাসান সজল, জয়নাল আবেদীন চঁাদ, ইউনুস আলী, মোখলেশুর রহমান কচি, অ্যাড. রাশেদ-উন-নবী, মাসুদ আহম্মেদ, রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শেখ আনসারুল হক খিচ্চু, বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, বোয়ালিয়া (পশ্চিম) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান রতন, মতিহার থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন, শাহমখদুম থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহাদত আলী শাহু, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য মালিহা জামান মালা, ইপফাৎ আরা কামাল, নগর কৃষক লীগ সভাপতি রহমতউল্লাহ সেলিম, নগর যুবলীগ সভাপতি রমজান আলী, সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন বাচ্চু, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আব্দুল মোমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, নগর মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সালমা রেজা, সাধারণ সম্পাদক কানিজ ফাতেমা মিতু, নগর যুব মহিলা লীগ সভাপতি অ্যাড. ইসমত আরা, সাধারণ সম্পাদক নিলুফার ইয়াসমিন নিলু, নগর ছাত্রলীগ সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিয়াম, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সিরাজুম মুবিন সবুজ সহ নেতৃবৃন্দ।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :