রাসিক কাউন্সিলর সুমনের জয়যাত্রার তিন বছরেই পাল্টে গেছে ১৯নং ওয়ার্ডের চিত্র রাসিক কাউন্সিলর সুমনের জয়যাত্রার তিন বছরেই পাল্টে গেছে ১৯নং ওয়ার্ডের চিত্র

রাসিক কাউন্সিলর সুমনের জয়যাত্রার তিন বছরেই পাল্টে গেছে ১৯নং ওয়ার্ডের চিত্র

রাজশাহী


লিয়াকত রাজশাহীঃ

২০১৮ সালের ৩০ জুলাই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে ১৯নং ওয়ার্ড থেকে আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী হয়ে বিএনপি’র চলমান কাউন্সিলরকে পরাজিত করে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন বর্তমান কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন।  আর ১১ অক্টোবরে দায়িত্ব গ্রহন করেন। 

কাউন্সিলর সুমন বলেন, দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই অবহেলিত ওয়ার্ডকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য উন্নয়নের পরিকল্পনা করা হয়। কারন এই ওয়ার্ডের প্রতিটি রাস্তা ছিলো ভাঙ্গা এবং চলাচলের অযোগ্য। সেইসাথে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ছিলো অত্যন্ত লাজুক। সামান্য বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতায় জনগণ বাড়ি থেকে বের হতে পারতেন না।

এই অবস্থা দূরীকরণে অত্র ওয়ার্ডের সুশিল সমাজ ও জনগণকে নিয়ে এই উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহন করেন তিনি। যার ফলশ্রুতিতে ইতোমধ্যে ১০৩ টি রাস্তা ও ড্রেন নির্মান সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও রেকর্ড ভেঙ্গে ৬৬৮ জনকে বয়স্কভাতা ও ২০৩ জনকে প্রতিবন্ধীভাতা তিনি প্রদান করেছেন। 

তিনি আরো বলেন, আরো ১৬ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান আছে। আরো ১০ কোটি টাকা উন্নয়ন টেন্ডার শিঘ্রই হতে চলেছে। তিনি বলেন, চলমান মহামারী করোনাতে তাঁর মা মৃত্যুবরণ করেছেন। তাঁর ২০ মাসের একমাত্র ছেলে সেও করোনা আক্রান্ত হয়েছিলো। এখন সে  সকলের দোয়ায় সুস্থ আছে। নিজের জীবনের কথা চিন্তা না করে মার্চ ২০২০ থেকে এখন পর্যন্ত করোনা রোগীর সেবায় বিনামুল্যে করোনা টেস্ট, ঔষধ, খাবার ও অক্সিজেন বাবস্থা করে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

কাউন্সিলর আরো বলেন, সরকারী ভাবে ৪৯০০ জন এবং ব্যক্তিগত ও স্থানীয় বিত্তবানদের সহায়তায় ৫৪৫৮ জনের মধ্যে ত্রান প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও তাঁর ওয়ার্ডের ২২৯৮ জন কয়েক দফা প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল হতে ২৫০০করে টাকা পেয়েছেন। দরিদ্র জনগণের কথা চিন্তা করে ৬০০ জনকে বিশেষ ও এমএস কার্ড প্রদান, বস্তিবাসী হিসেবে রেলওয়ে বস্তি, চন্দ্রিমা বস্তি, মসজিদ বস্তির ২৯৬ জনকে এককালিন ১৫,০০০ টাকা করে নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে।

সুমন আরো বলেন, তার কার্যক্রমে সন্তুষ্ট ও ওয়ার্ডের উন্নয়নের ধারা এবং মানুষের সেবা করা দেখে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক এগিয়ে এসেছে। এরফলে ব্র্যাক এর  উদ্যোগে অসহায় ৬০০ নারীর মধ্যে ১৫০০ করে টাকা প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, ওয়ার্ডকে আলোকিত, চুরি-ছিনতাই থেকে মুুক্ত রাখতে এবং জনগণের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে প্রত্যেক বিদ্যুৎ পোলে কাঁচের লাইটের বদলে এনার্জি বাল্ব দেওয়া হয়েছে। 

এছাড়াও ওয়ার্ডকে পরিচ্ছন্ন রাখতে এবং জলাবদ্ধতা থেকে মুক্ত রাখতে প্রতিনিয়তই রাস্তা ও ড্রেন পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, সরকারী-বেসরকারী ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে যত অনুদান পাওয়া গেছে সব গুলোই সততার সাথে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করা হয়েছে এবং উন্নয়নমুলক কাজ করা হয়েছে। এছাড়াও কার্যক্রম চলমান রয়েছে।  

সুমন বলেন, যারা কাজ করেন তাদেরই ভুল ক্রুটি হয়ে থাকে। এই সকল ভূলত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য অনৃরোধ করেন তিনি। তাঁর মেয়াদ কাল ২০২৩সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত। এর মধ্যেই সকল রাস্তা ও  ড্রেনের উন্নয়ন তিনি করবেন। 
কাউন্সিলর জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা না থাকলে আমি কখোনই কাউন্সিলর হতে পারতাম না।  এজন্য তিনি আজীবন ওয়ার্ডবাসীর নিকট কৃতঙ্গতা প্রকাশ করেন এবং সবাইকে ধন্যবাদ জানান। আগামী নির্বাচনে উন্নয়নের কথা ভেবে কারো কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে পাশে থাকার আহবান জানান তিনি।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :