রেডিও-টিভিতে প্রচারিত আজানের উত্তর দিতে হবে কি?

রেডিও-টিভিতে প্রচারিত আজানের উত্তর দিতে হবে কি?

ইসলাম

ইসলামীক ডেক্সঃ

আজানের মাধ্যমে নামাজের আহ্বান করা হয়। মুয়াজ্জিনের আজান ও ইকামত শুনলে অনুরূপ উত্তর দিতে বলেছেন বিশ্বনবি। কিন্তু রেডিও-টেলিভিশনে প্রচারিত আজান শুনেও কি উত্তর দিতে হবে? আজানের জবাব দেওয়া সম্পর্কে ইসলামের নির্দেশনাই বা কী?

নামাজের ওয়াক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেশের প্রায় সব রেডিও এবং টেলিভিশনে আজান দেওয়া হয়। অনেকেই জানেন না যে, রেডিও এবং টেলিভিশনে আজান শুনলে এর উত্তর দিতে হবে কি?

‘না’, রেডিও এবং টেলিভিশনে প্রচারিত আজান শুনলে তার উত্তর দিতে হবে না। কেননা হাদিসে আজানের উত্তর দেওয়ার ব্যাপারে হাদিসের সুস্পষ্ট দিক নির্দেশনা রয়েছে।

আজানের উত্তর দেওয়ার শর্ত হলো-

নামাজের ওয়াক্তে মুয়াজ্জিন যে আজান দেয়; তা শুনে অনুরূপ উত্তর দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে হাদিসে। রেকর্ডকৃত কোনো আজান সম্প্রচার করা হলে সে আজানের উত্তর দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। আর রেডিও-টিভিতে যে আজান প্রচারিত হয়, তা আগে থেকে ধারণ করা। তাই আগে থেকে রেকর্ড বা ধারণকৃত আজানের উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

আজানের উত্তর দেওয়া সম্পর্কে হাদিসের নির্দেশনা

১. হজরত আবু সাঈদ খুদরি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যখন তোমরা আজান শুনতে পাও; তখন মুয়াজ্জিন যা বলে তোমরাও তা-ই বলবে।’ (বুখারি, মুসলিম)

২. হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেনতিনি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছেন, ‘তোমরা যখন মুয়াজ্জিনকে আজান দিতে শুনতখন সে যা বলে তোমরাও তা-ই বল। অতঃপর আমার উপর দরূদ পাঠ কর। কেননাযে ব্যক্তি আমার ওপর একবার দরূদ পাঠ করে আল্লাহ তাআলা এর বিনিময়ে তার উপর ১০ বার রহমাত বর্ষণ করেন। অতঃপর আমার জন্যে আল্লাহর কাছে ওয়াসিলাহ‌ প্রার্থনা কর। কেননা, ‘ওয়াসীলাহ্‌’ জান্নাতের একটি সম্মানজনক স্থান। এটা আল্লাহর বান্দাদের মধ্যে একজনকেই দেওয়া হবে। আমি আশা করিআমিই হব সে বান্দা। যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে আমার জন্যে ওয়াসীলাহ্‌ প্রার্থনা করবে তার জন্যে (আমার) শাফাআত ওয়াজিব হয়ে যাবে।’ (মুসলিম)

৩. হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে ছিলাম। এমন সময় বিলাল (রাদিয়াল্লাহু আনহু) আজান দেওয়ার জন্য দাঁড়ালেন। তিনি আজান শেষ করলে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘যে ব্যক্তি দৃঢ় বিশ্বাসের সঙ্গ (মুয়াজ্জিন বিলাল) এর অনুরূপ বলবে (আজানের জবাব দেবে), সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’ (নাসাঈ)

উল্লেখিত হাদিসের আলোকে আজানের উত্তর দেওয়ার ব্যাপারে নির্দেশনা হলো-

আজানের নির্ধারিত সরাসরি মুয়াজ্জিনের কণ্ঠ থেকে শোনা আজানের উত্তর দেওয়া। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন-

যখন তোমরা মুয়াজ্জিনকে বলতে শুনবে তখন তোমরাও তার অনুরূপ বল।’ (মুসলিম)

হাদিসের এ নির্দেশনার কারণেই আগে থেকে রেকর্ড বা ধারণকৃত রেডিও-টেলিভিশনে প্রচারিত আজানের উত্তর দেওয়া সুন্নাত বা মাসনূন বলে বিবেচিত হবে না।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :