লকডাউনের সুযোগে নাচোলের কৃষি জমিতে পুকুর কাটার হিড়িক

লকডাউনের সুযোগে নাচোলের কৃষি জমিতে পুকুর কাটার হিড়িক

রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

করোনা রোধে  সারাদেশে  চলছে  সর্বাত্মক লকডাউন। আর এই সুযোগে কিছু অসাধু লোকজন রাতারাতি কৃষি উর্বর জমিতে শুরু করেছে পুকুর খননের হিড়িক। সরকারি কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই নাকি প্রশাসন কে ম্যানেজ করেই এই লকডাউনের মধ্যে শুরু করেছে পুকুর খননের কাজ।

জেলার নাচোল উপজেলার বরেন্দ্র এলাকার কৃষি জমিতে পুকুর খননের এ অভিযোগ উঠেছে।সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানাগেছে,রাজশাহীর ওয়াল্টন প্লাজার জনৈক ব্যবসায়ী ইকবাল রাজশাহীর সদরে প্রশাসনের তোপের মুখে কৃষি জমিতে পুকুর খননে ব্যার্থ হয়ে গত বছর থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল ২ নং ফতেপুর ইউপির পাহাড়পুর গ্রামে প্রায় ২শ বিঘা কৃষি জমিতে সরকারি নিয়ম অমান্য করে পুকুর খনন করে।

প্রশাসনের নজর ফাঁকি দিয়ে বর্তমানে লকডাউনের মধ্যে ও পাহাড়রপুর মৌজার ৩৩০ ও ৬২৯ নং দাগের প্রায় পঞ্চাশ বিঘা কৃষি জমিতে নতুন করে পুকুর খনন কাজ চলছে।বরেন্দ্র অঞ্চলের এসব উর্বর কৃষি জমিতে পুকুর খনন করায় পানিপ্রবাহ আটকে থাকায় পাশ্ববর্তি জমির মালিকরা জমিতে ফসল উৎপাদন করতে হিমসিম খেতে হয়।

ঐ এলাকার কৃষক সেরাজুল মিয়া জানান,এখানে যে ভাবে রাতারাতি সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষি জমিতে পুকুর খনন কাজ করছে তাতে করে এমাঠের কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদন ব্যাহাত হবে। প্রথমে তারা কৃষি জমির চারপাশে মাটি দিয়ে বাঁধ বেধে দখল শুরু করার পর পুকুর খনন কাজ করছে বলে জানান।

বৃহস্পতিবার বিকালে সরেজমিনে গিয়ে পাহাড়ারপুর এলাকায় পুকুর খননের নিয়োজিত ম্যানেজার সেলিমের কাছে কিভাবে তারা কৃষি জমিতে রাতারাতি পুকুর খনন কাজ করছে এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে চাইলে তিনি বলেন,লকডাউন, সবকিছু বন্ধ তাই এ সুযোগে প্রশাসন কে ম্যানেজ করেই পুকুর খনন কাজ অব্যাহত আছে।

এ বিষয়ে ফতেপুর ইউপির ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা নুরুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন খুব শ্রীঘ্রই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে পুকুর খনন কারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :