শিক্ষার্থীদের মারধর সম্পর্কে দেওবন্দের ফতোয়া

শিক্ষার্থীদের মারধর সম্পর্কে দেওবন্দের ফতোয়া

ইসলাম

ইসলামীক ডেক্সঃ

শিক্ষাঙ্গনে ছাত্রদের মারধর প্রসঙ্গে একটি কথা প্রচলিত আছে যে- ‘শিক্ষার্থীর শরীরের যেসব স্থানে শিক্ষকরা পেটান বা মারধর করেন, শরীরের ওই সব স্থানের জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে যায়।’ এ বিষয়টি কি সঠিক?

মারধর সম্পর্কিত এ রকম বক্ত্যের ব্যাপারে চিঠি পেয়েছে দারুল উলুম দেওবন্দ। তারা এ প্রশ্নের আলোকে শিক্ষার্থীদের মারধরের ব্যাপারে ফতোয়া দিয়েছেন। তাহলো-

ইমলামি শরিয়তে বেত, লাঠি বা চামড়ার বেল্ট ইত্যাদি দ্বারা কখনও মারা জায়েজ বা বৈধ নয়। চাই সে শিক্ষা হোক ফরজে আইন কিংবা ফরজে কেফায়া। কোনোভাবেই হাত-পা বেঁধে কোনো কিছুর দ্বারা আঘাত করা যাবে না। এক্ষেত্রে দেওবন্দের ফতোয়া বিভাগ হাদিসের সুস্পষ্ট একটি বর্ণনা তুলে ধরেছেন-
হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজরত মেরদাস রাদিয়াল্লাহু আনহুকে উদ্দেশ্য করে বলেন, (যিনি বাচ্চাদের পড়াতেন ) ‘বাচ্চাদের তিনটার বেশি মারবে না। যদি তুমি তিনটার বেশি মারো, তাহলে আল্লাহ তাআলা কেয়ামতের দিন তোমার থেকে ক্বিসাস বা বদলা নেবেন।’

শিক্ষার্থীদের মারধরের ব্যাপারে ফতোয়া বিভাগ জানান- ‘কুরআন-হাদিস ও গ্রহনযোগ্য কোনো কিতাবে এমন কোনো বিষয় বা ঘটনা নেই যে, ওস্তাদ বা শিক্ষকরা শরীরের যে অংশে পেটাবেন, শরীরের সে অংশের জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে যায়।’

বরং ফিকাহ শাস্ত্রবিদগণ এ হাদিসের আলোকে বলেন, ‘শিষ্টাচার শেখানোর জন্য ওস্তাদ হালকাভাবে হাতের মাধ্যমে মারতে পারবে কিন্তু তা-ও আবার এক সঙ্গে ৩টির বেশি মারা যাবে না।

অনুরূপভাবে বাবা-মা তাদের সন্তানদের শাসন করার জন্য সাধারণভাবে মারতে পারবে। কিন্তু বেত-লাঠি ইত্যাদি দিয়ে মারা জায়েজ নেই। এ জন্যই মাদরাসা-মক্তবে ওস্তাদগনের জন্য বাচ্চাদের বেঁধে বেত-লাঠি কিংবা চামড়ার বেল্ট ইত্যাদি দিয়ে মারা জায়েজ নয়।

মাদরাসা-মক্তব বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ওস্তাদ/শিক্ষকরা এই সমস্ত (মারধরের) কাজ থেকে বিরত থাকা উচিত। মারধরের পরিবর্তে শিশুদের আদর-স্নেহ-মমতা ও ভালোবাসা দিয়ে পড়ানো উচিত। একান্তই যদি কাউকে শাস্তি কিংবা কোনো অপরাধের বিচার-ফয়সালা করতে হয়ে তবে তা হাদিসের দিকনির্দেশনা অনুসারেই হতে হবে।
ফতোয়ায়ে দারুল উলূম দেওবন্দ। (ফতোয়া নাম্বার : 305-325/N=4/1439)

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :