শয়তানের ধোঁকার পর আল্লাহর ক্ষমা

শয়তানের ধোঁকার পর আল্লাহর ক্ষমা

ইসলাম

ইসলামীক ডেক্সঃ

আল্লাহ তাআলা কুরআনে পাকের অনেক আয়াতে শয়তানকে মানুষের প্রকাশ্য দুশমন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। শয়তানের ধোঁকা ও প্রতারণা থেকে মুক্ত থাকতে দিয়েছেন অনেক দিক-নির্দেশনা এবং সতর্কতা। তারপর মানুষ শয়তানের ধোঁকা এবং প্রতারণার শিকার হয়।

কোনো মানুষ যদি শয়তানের ধোঁকা বা প্রতারণার ফাঁদে পড়ে যায় এবং আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে অথবা শয়তানের প্ররোচনায় নিজেকে না জড়ায় আল্লাহ তাআলা ওই বান্দাকে ক্ষমা করে দেন অথবা নির্ধারিত কাজে শয়তানের প্ররোচনায় আক্রান্ত না হওয়ার কারণে ওই কাজে বরকত দান করেন। আল্লাহ তাআলা মানুষকে লক্ষ্য করে ঘোষণা করেন-

সুরা বাকারার ২৬৮নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা মানুষকে শয়তানের ধোঁকা থেকে মুক্ত থাকার এবং তোঁর ক্ষমার ঘোষণা দেন।

আগের আয়াতে আল্লাহ তাআলা মানুষকে সর্বোত্তম দ্রব্য-সামগ্রী দানের ব্যাপারে নসিহত পেশ করেছেন। আর তাতে আল্লাহ তাআলা সম্পদে বরকত দান করবেন। এ আয়াতে সে দানের ব্যাপারে শয়তানের ধোঁকা এবং প্রতারণা থেকে নিজেদের হেফাজত করার নসিহত পেশ করেছেন।

আলোচ্য আয়াতে বলা হয়েছে, শয়তান তোমাদেরকে অভাবে ভয় দেখায় আর পাপাচারের নির্দেশ দেয়। নেক কাজে যদি সম্পদ ব্যয় করা হয় তবে শয়তান মানুষকে বিভিন্নভাবে ভীতি প্রদর্শন করে থাকে। সে বলে, তুমি যদি সম্পদ ব্যয় কর তবে অভাবী হয়ে যাবে; তোমার সম্পদে ঘাটতি হবে। পক্ষান্তরে অন্যায় কাজে ব্যয় করলে তখন শয়তান মানুষকে অতিমাত্রায় উৎসাহ যোগায়।

কোনো ব্যক্তি যদি ব্যক্তি ও সমাজের কল্যাণে, মাদ্রাসা বা দ্বীনি প্রতিষ্ঠানে, অভাবী অসহায় মানুষকে দান করার ইচ্ছা পোষণ করে বা দান করে; তখন শয়তান এ সব কাজে ব্যয়কারীকে বিভিন্নভাবে বিরত রাখতে প্ররোচনা দেয়। ফলে এ দানের জন্য ওই সব মানুষের কাছে বার যাতায়াত করার পরও দেব-দিচ্ছি বলে সময় ক্ষেপণ করে। আর এটা শয়তানের কুমন্ত্রণারই ফসল।

অথচ মানুষ অন্যায় ও অসামাজিক আচার-অনুষ্ঠানে বিনা হিসেবে খরচ করে থাকে। যাতে শয়তান মানুষকে আগ্রহ যোগায়। এ আয়াতে এ সব ব্যাপারে শয়তানের ধোঁকা থেকে বেঁচে থাকতে এবং আল্লাহর পথে ব্যয় করতে উদ্বুদ্ধ করতে ক্ষমা ও দানে বরকতের ঘোষণা প্রদান করেছেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শয়তানের যাবতীয় ধোঁকা ও প্রতারণা থেকে নিজেদের মুক্ত রেখে আল্লাহর পথে সম্পদ ও অর্থ ব্যয় করে তাঁর ক্ষমা ও কল্যাণ লাভের তাওফিক দান করুন। আল্লাহর বিধি-বিধান পালনে তাঁর হুকুম যথাযথ মেনে চলার তাওফিক দান করুন। আমিন।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :