হেরেও সিরিজ জিতল টাইগাররা

হেরেও সিরিজ জিতল টাইগাররা

খেলাধুলা

খেলা ডেক্সঃ

হলো না বাংলাওয়াশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবারের মত সিরিজ জিতলেও ওদের হোয়াইটওয়াশ করতে পারলো না বাংলাদেশ।

সিরিজের ৩য় ও শেষ ওয়ানডেতে টাইগারদের ৯৭ রানে হারিয়েছে লঙ্কানরা। প্রথমে ব্যাট করে কুশাল পেরেরার সেঞ্চুরিতে ২শ’ ৮৬ রান তোলে গেস্টরা। জবাবে ম্যাচসেরা চামিমার ৫ উইকেটে ১৮৯ রানে গুটিয়ে যায় তামিমের দল।

প্রথম দুই ম্যাচে হারলেও এদিন টাসভাগ্যে কুশাল পেরেরার হাসি। মিরপুরের উইকেট ২য় ইনিংসে হয়ে পড়ে ধীর গতির, ব্যাট করা হয়ে যায় কঠিন। ওটা মাথায় রেখে ব্যাটিং বেছে নিয়ে লঙ্কার ফ্লাইং স্টার্ট। ১১.২ ওভারের ওপেনিং জোটে তাই ৮২ রান।

এরপরই তাসকিনের জোড়া আঘাত। ১২ তম ওভারে টাইগার স্পিডস্টারের বলে প্রথমে ৩৯ করা গুণাথিলাকা বোল্ড, খালি হাতেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে নিশাঙ্কা।

৮২ তে দুই উইকেট হারানোর পর ৬৯ রানের পার্টনারশিপ দুই কুশালের। ২২ করে তাসকিনের ৩য় শিকার মেন্ডিস। তবে থামানো যায় নি পেরেরাকে। ওর ক্যাচই পড়েছে গোটা তিনেক। লাইফ পেয়েছেন এমনকি ৯৯ রানেও। অবশেষে পূর্ন করেছেন সেঞ্চুরি।

পরে ১২০ এ পেরেরাকে ফিরিয়েছেন শরিফুল। ডিকওয়েলার রানআউটের পর হাসারাঙ্গাকে ফিরিয়ে তাসকিনের ৪ শিকার। তারপরও ধনাঞ্জয়ের ফিফটিতে লংকানদের বোর্ডে জমা ২৮৬। 

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই তাড়াহুড়া টাইগার ব্যাটসম্যানদের। লিটনের জায়গায় সুযোগ পেয়ে নাইম ফ্লপ। টানা তিন ম্যাচ ধরে সাকিবও তাই। আজ হাসে নি তামিমের ব্যাটও। ২৮ রানেই নাই তিন উইকেট। 

বিপর্যয় সামাল দিতে গিয়ে আস্কিং রেটের কথা যেন ভুলে বসেছিলেন মুশফিক-মোসাদ্দেক। ৫৪ বলে ২৮ করে ফিরেছেন মুশি, ৭২ বলে ৫১ করে আউট সৈকত। বল নষ্ট করে সেটা পোষাতে পারেন নি কেউই।

বাকি সময় ছিল শুধুই পরাজয়ের ব্যবধানা কমানোর লড়াই। চামিরার ৫ উইকেটে সেটাই বা হলো কই? 

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য করুন :